নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ | নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসায় যেতে কত টাকা লাগে |

নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ | নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ফি কত |
নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ নিয়ে আজকের আর্টিকেলে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে। আপনারা অনেকেই অনেক দেশে ভ্রমণ করতে যেয়ে থাকেন। যাওয়ার পূর্বে আপনারা বিভিন্ন দেশ সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য সংগ্রহ করেন। এগুলো করার কারণ হচ্ছে আপনারা জানতে এবং বুঝতে চান যে কোন দেশগুলোতে ভ্রমণ করা আপনার জন্য উত্তম।
আজকে আমরা এমনই একটি দেশ নিয়ে হাজির হয়েছি যে দেশটিতে আপনারা ইচ্ছে করলে ভ্রমণ করতে পারেন। এ কারণে আজকের এই আর্টিকেলে নিউজিল্যান্ড ভ্রমণ ভিসা সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য তুলে ধরা হয়েছে। যেগুলো থেকে আপনারা বিভিন্ন বিষয় জানতে পারবেন।

নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ২০২৩

নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসার জন্য আপনাকে ভারতে প্রবেশ করতে হবে। কারণ বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ডের হাইকমিশন নেই। যে কারণে আপনি যদি নিউজিল্যান্ডের ভিসা করতে চান তবে আপনাকে ভারতে যেতে হবে এবং ভারতে যেই নিউজিল্যান্ডের ভিসা প্রসেসিং এর অফিস রয়েছে সেখানে যোগাযোগ করতে হবে। আজকের আর্টিকেলে নিউজিল্যান্ডের ভিসা সম্পর্কে জানা-অজানা বিভিন্ন তথ্য পেয়ে যাবেন।
আপনারা যে সকল তথ্যগুলো আজকের আর্টিকেল থেকে পাবেন তা হল। নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসায় যেতে কত টাকা লাগে, কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয়, টুরিস্ট ভিসায় আবেদন করার নিয়ম, টুরিস্ট ভিসা ফি কত, টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ কতদিন, ভিসা প্রসেসিং হতে কতদিন সময় লাগে ইত্যাদি। চলুন এই সকল বিষয়গুলো সম্পর্কে বিস্তারিত জেনে নেওয়া যাক।

নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসায় যেতে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন

নিউজিল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার জন্য যে সকল ডকুমেন্টস প্রয়োজন হবে সেগুলো নিম্নে উল্লেখ করা হলো। তবে আপনারা যারা নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার জন্য আবেদন করবেন তারা অবশ্যই সঠিক ডকুমেন্টগুলো সাবমিট করবেন।
  1. প্রথমত আপনার একটি বৈধ পাসপোর্ট এর প্রয়োজন হবে। পাসপোর্ট এর মেয়াদ সর্বনিম্ন ৬ মাস হতে হবে।
  2. তারপরে আপনার সদ্য তোলা ছবির প্রয়োজন হবে। ছবিতে চশমা অথবা অন্য কিছু ব্যবহার করা যাবে না। ছবিগুলো অবশ্যই স্পষ্ট হতে হবে।
  3. আপনি যদি অন্য দেশে ভ্রমণ করে থাকেন সেখানে যে ছবিটি ব্যবহার করেছেন সেই ছবিটি ব্যবহার না করে নতুন একটি ছবি ব্যবহার করবেন।
  4. ভিসা অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম এর প্রয়োজন হবে।
  5. ব্যাংক স্টেটমেন্ট, আপনার ব্যাংক স্টেটমেন্টে পাঁচ লক্ষ টাকা এর মত দেখাতে হবে। আর অবশ্যই ব্যাংক স্টেটমেন্ট শেষ ৬ মাসের হতে হবে। তাদের বুঝাতে হবে যে আপনি ব্যাংক একাউন্টে একাধিক লেনদেন করেন।
  6. একটি কাভার লেটার এর প্রয়োজন হবে, কাভার লিটারে উল্লেখ করবেন আপনি কেন নিউজিল্যান্ডে ভ্রমণ করতে যেতে চান।
  7. আপডাউন এয়ার টিকিটের কপি দিতে হবে।
  8. আপনি যদি বিজনেসম্যান হন তবে ট্রেড লাইসেন্স এর কপি দিতে হবে।
  9. ভিজিটিং কার্ড দিতে হবে।
  10. মেডিকেল রিপোর্ট এর প্রয়োজন হবে।
  11. পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট এর প্রয়োজন হবে।
  12. করোনা টিকা কার্ড এর প্রয়োজন হবে।
  13. স্যালারি স্টেটমেন্ট।
  14. আপনি যদি স্টুডেন্ট হন তবে স্টুডেন্টের আইডি কার্ড দিতে হবে। তার সাথে লিফ লেটার দিতে হবে এবং এনওসি দিতে হবে।
এই ডকুমেন্টসগুলো সবার জন্য প্রযোজ্য। এছাড়াও অন্যান্য ডকুমেন্টস প্রয়োজন হলে আপনি যেই মাধ্যমে যাবেন তারা আপনাদেরকে জানিয়ে দেবেন। অন্যের মাধ্যমে আবেদন করলেও আপনারা বুঝতে পারবেন কি কি ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হতে পারে।

নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসায় আবেদন করার নিয়ম

নিউজিল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসায় আবেদন করতে হলে আপনাকে দুই রকম পদ্ধতি অবলম্বন করতে হবে। প্রথমত আপনি অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে পারেন অথবা আপনি সরাসরি নিউজিল্যান্ডের এম্বাসিতে গিয়ে আবেদন করতে পারেন।

অনলাইনের মাধ্যমে আবেদন

অনলাইন এর মাধ্যমে আবেদন করতে হলে আপনাকে নিউজিল্যান্ডের অফিশিয়াল ওয়েবসাইটে প্রবেশ করতে হবে। তারপরে সেখানে একটি অ্যাকাউন্ট ক্রিয়েট করতে হবে। অতঃপর আপনারা আপনাদের সকল ডকুমেন্টগুলো সেখানে সাবমিট করবেন। তারপরে তারা আপনার একাউন্ট এবং আপনার ডকুমেন্টগুলো ভেরিফাই করবে। তারা যদি মনে করেন আপনি এই ভিসার জন্য পারফেক্ট তবে আপনাকে একটি লেটার পাঠাবে তাদের সাথে আপনার কে ইমেইল ও পাঠাবে। এভাবে আপনারা অনলাইনের মাধ্যমে ভিসা পেতে পারেন।

সরাসরি এম্বাসি গিয়ে আবেদন

যদি আপনি নিউজিল্যান্ডের ভ্রমণ ভিসার জন্য সরাসরি এম্বাসি যেতে চান তবে আপনাকে ভারতে যেতে হবে। কারণ বাংলাদেশের নিউজিল্যান্ডের এজেন্সি বা এম্বাসি নেই। নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার জন্য ইন্ডিয়ার দিল্লিতে ওদের এম্বাসি রয়েছে সেখানে গিয়ে আপনি সরাসরি যোগাযোগ করতে পারবেন। যোগাযোগ করার মাধ্যমে আপনি টুরিস্ট ভিসা নিতে পারেন। তবে ভিসা নেবার জন্য আপনার সকল ডকুমেন্টস এখানেও প্রয়োজন হবে। তারপরে আপনারা সবকিছু যদি সঠিক থাকে এবং তারা যদি আপনাকে ভ্রমণ করার জন্য পারমিশন দেয় তবে আপনার ইমেইলে জানিয়ে দেবে।

নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসা ফি কত

নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ফি প্রায় ১৬ হাজার টাকার মতো আসবে। তবে কিছু ক্ষেত্রে সামান্য কম অথবা বেশি হতে পারে। সব সময় একই রকম ফি প্রযোজ্য হয় না।
নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ২০২৩ | নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা ফি কত |

নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসার মেয়াদ কতদিন

নিউজিল্যান্ডের টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ দিয়ে থাকে প্রায় ৯০ দিন। আপনারা সেখানে ৯০ দিন আপনার ইচ্ছামত ভ্রমণ করতে পারবেন। তবে ৯০ দিনের পূর্বেই আপনাকে আবার দেশে ফিরে আসতে হবে। কারণ ৯০ দিনের মধ্যে আপনার ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে যাবে। যেহেতু আপনারা ভ্রমণ করার জন্য যাবেন সুতরাং ৯০ দিন অনেক বেশি ভ্রমণ করতে পারবেন। নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসার মেয়াদ মূলত তিন মাস হয়ে থাকে।

নিউজিল্যান্ড টুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং হতে কত দিন সময় লাগে

নিউজিল্যান্ড ট্যুরিস্ট ভিসা প্রসেসিং হতে সময় লাগতে পারে ১০ থেকে ১২ কর্ম দিবস। এই সময়ের মধ্যে মূলত তারা ভিসা প্রদান করে থাকে। তবে অনেক সময় দেখা যায় বেশ কিছু সমস্যার কারণে এক মাস পর্যন্ত সময় লাগে। তাদের সবকিছু সঠিক থাকলে দশ থেকে বারো কর্মদিবেশের মধ্যে ভিসা প্রসেসিং সম্পন্ন হয়।

Leave a Comment