লিথুনিয়া কাজের ভিসা, যাবার খরচ ও বেতন (সংক্রান্ত নতুন তথ্য ২০২৩)

লিথুনিয়া কাজের ভিসা, যাবার খরচ ও বেতন (সংক্রান্ত নতুন তথ্য ২০২৩)
লিথুনিয়া কাজের ভিসা সংক্রান্ত সকল আপডেট তথ্য নিয়ে আজকে আমরা আপনাদের সঙ্গে আলোচনা করব। এই আলোচনা থেকে আপনারা লিথুনিয়া সম্পর্কে সাম্যক জ্ঞান অর্জন করতে পারবেন। আপনি যদি লিথুনিয়া যেতে চান বা এদের সম্পর্কে জানতে চান তাহলে আজকের আমাদের এই কন্টেন্ট আপনার জন্য। এই পুরো কনটেন্ট জুড়ে লিথুনিয়া সম্পর্কে যাবতীয় তথ্য তুলে ধরার চেষ্টা করা হয়েছে। আমরা আশাকৃত যে আপনারা আমাদের এ কনটেন্ট থেকে উপকৃত হবেন।

লিথুনিয়া কাজের ভিসা ২০২৩

বর্তমান সময়ে বাংলাদেশের অনেক মানুষ লিথুনিয়া কাজ করার জন্য যেতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন। আবার অনেকেই লিথুনিয়াতে বর্তমানে কাজরত অবস্থায় রয়েছেন। মূলত আজকের আমাদের এই কনটেন্ট এ লিথুনিয়া কাজের ভিসা সম্পর্কে জানানোর চেষ্টা করব।

যেমন, এই দেশটিতে গিয়ে একজন শ্রমিক প্রতি মাসে কত টাকা আয় করতে পারবে, ভিসা খরচ কত, কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন হয়, সেখানে কোন কাজগুলো চাহিদা বেশি, বাঙালিরা কেমন কাজ করে ইত্যাদি সম্পর্কে। চলুন এই বিষয়বস্তুগুলো সম্পর্কে জেনে আসি।

লিথুনিয়া যেতে কত টাকা লাগে

লিথুনিয়া যেতে খরচ হয় প্রায় ৭ লক্ষ টাকার মতো। কিছু এজেন্সি অথবা অন্যান্য বিষয়গুলোর উপর নির্ভর করে সামান্য কম অথবা বেশি টাকা খরচ হতে পারে। বাংলাদেশে অনেক এজেন্সি রয়েছে বিভিন্ন এজেন্সি খরচ ভিন্ন রকম হয়ে থাকে। সে ক্ষেত্রে ও মূল্য কম-বেশি হতে পারে।

আর আপনি যদি সকল প্রসেস কোন এজেন্সি বা দালালদের সাহায্য না নিয়ে নিজে নিজেই সম্পন্ন করতে পারেন। তবে আপনার খরচ হবে প্রায় তিন লক্ষ টাকার মত। এক্ষেত্রে আপনার ভিসা পাওয়া একটু কঠিন হতে পারে। তবে যারা সকলেই দালালদের সংস্পর্শ থেকে দূরে থাকার চেষ্টা করবেন।

লিথুনিয়া কাজের বেতন কত

লিথুনিয়া গিয়ে একজন শ্রমিক প্রতি মাসে আয় করতে পারবেন প্রায় ৬০০ থেকে ৭০০ ইউরো। যা বাংলাদেশের মুদ্রায় প্রায় ৭১ হাজার ৬০০ থেকে ৮৩ হাজার ৫০০ টাকা। তবে সকলেই এমন বেতন পাবেন তা নয়। বিভিন্ন কাজের ক্যাটাগরির উপর নির্ভর করে এবং বিভিন্ন কোম্পানির ওপর নির্ভর করে বেতন আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। প্রথম অবস্থায় আপনারা ৫০০ থেকে ৬০০ ইউরো এর মত বেতন পাবেন।


বাংলাদেশ থেকে যারা কাজ করার জন্য লিথুনিয়া যাই তাদের সকলের জানা উচিত তারা কেমন বেতন পাবেন তা সম্পর্কে। মূলত তারা অর্থ উপার্জন করার উদ্দেশ্য নিয়ে যাই সুতরাং কত অর্থ ব্যয় হবে, কত অর্থ গুছাতে পারবে এটা বুঝতে পারবে কাজের বেতন কত পাবে তা জানার পর। যে কারণে আমাদের বেতন সম্পর্কে জানা উচিত।

লিথুনিয়া যাবার উপায়

লিথুনিয়া আপনারা যে কোন এজেন্সির সাহায্য এবং দালালদের সাহায্য নিয়ে যেতে পারেন। তবে দালালদের থেকে সতর্ক থাকাই উচিত। এজেন্সিগুলো সাহায্য নিয়ে আপনারা খুব সহজেই বাংলাদেশ থেকে বিভিন্ন দেশে যেতে পারবেন লিথুনিয়া সহ।

আবার আপনারা চাইলে অনলাইনের মাধ্যমে জব সংগ্রহ করে ইনভাইটেশন লেটার এর মাধ্যমে আপনারা বাংলাদেশ থেকে লিথুনিয়া সেই কোম্পানিতে জব করার জন্য যেতে পারেন। এক্ষেত্রে আপনাদের দক্ষতার প্রয়োজন হবে। আবার অন্যান্য দের তুলনায় বেতন ও বেশি হবে।

লিথুনিয়া যেতে কি কি ডকুমেন্টস প্রয়োজন

লিথুলিয়া যেতে হলে আপনার বেশ কিছু ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হবে। মূলত সর্বক্ষেত্রে প্রয়োজন হয় এমন ডকুমেন্টসগুলোর নিচে উল্লেখ করা হলো। সকল প্রসেস করার পূর্বে আপনারা ডকুমেন্টস গুলো সংগ্রহ করে রাখবেন। যেন ডকুমেন্টস এর প্রয়োজন হলেই সঙ্গে সঙ্গে দেখাতে পারেন।

  • প্রথমত আপনার ৬ মাস এর বেশি মেয়াদী একটি পাসপোর্ট এর প্রয়োজন হবে, পাসপোর্টে দুই বছর বা তার বেশি মেয়াদ থাকা উত্তম ওয়ার্ক পারমিট ভিসার ক্ষেত্রে।
  • সদ্য তোলা ছবির প্রয়োজন হবে, অবশ্যই ছবি রঙিন হতে হবে।
  • পুলিশ ক্লিয়ারেন্স সার্টিফিকেট।
  • মেডিকেল রিপোর্ট।
  • এন আই ডি কার্ড ও জন্ম সনদ।
  • ব্যাংক স্টেটমেন্ট, শেষ ৬ মাসের স্টেটমেন্ট দেখাতে হবে।
  • করোনার টিকা কার্ড।
  • ভিসা অ্যাপ্লিকেশন ফর্ম।

এছাড়াও অন্যান্য ডকুমেন্টস প্রদান করতে হলে আপনি যে এজেন্সির মাধ্যমে যাবেন সে এজেন্সি থেকে আপনাকে বলে দেওয়া হবে।

লিথুনিয়া গিয়ে বাঙালিরা কি কি কাজ করেন

লিথনিয়া বর্তমানে অনেক বাঙালি রয়েছে। তারা বিভিন্ন রকম কাজ করে থাকেন। বাঙ্গালিরা প্রধানত লিথুনিয়া গিয়ে কেমন ধরনের কাজ করেন তা নিচে উল্লেখ করা হলো।

  • কনস্ট্রাকশন
  • প্লাম্বিং
  • মেসন
  • পাইপ ফিটিং
  • টেক্সটাইল
  • টাইলস
  • হোটেল
  • ক্লিয়ার
  • ড্রাইভিং
লিথুনিয়া কাজের ভিসা ২০২৩

লিথুনিয়াতে কি ওভারটেম কাজ করা যায়

আপনারা অনেকেই বাংলাদেশ থেকে লিথুনিয়াতে কাজ করার জন্য যাবেন। কাজ করার মূল উদ্দেশ্য হল অর্থ উপার্জন করা। আপনারা চাইবেন খুবই দ্রুত যেন বেশি অর্থ উপার্জন করা যায়। যে কারণে আপনারা জানতে চান বেসিক কাজে এর পাশাপাশি ওভারটাইম কাজ করার সুযোগ সুবিধা রয়েছে কিনা।

হ্যাঁ, লিথুনিয়াতে ওভারটাইম কাজ করার সুযোগ সুবিধা রয়েছে। ওভারটাইম কাজ করার জন্য শ্রমিকদের এক্সট্রা বেতন দিয়ে থাকে লিথুনিয়ার কোম্পানিগুলো।

লিথুনিয়ায় কত ঘন্টা কাজ করতে হয়

লিথুনিয়াতে ৮ থেকে ১০ ঘন্টা কাজ করতে হয়। ৮ থেকে ১০ ঘন্টার পরে যতটুকু কাজ করবেন সম্পূর্ণ টুকু ওভারটাইম এর মধ্যে পড়বে। আর এ ওভারটাইম এর জন্য এক্সট্রা বেতন প্রদান করা হবে। ওভারটাইমসহ একজন শ্রমিক লিথুনিয়া গিয়ে ১২ থেকে ১৪ ঘন্টা পর্যন্ত কাজ করে থাকেন।

লিথুনিয়া টাকার মান কেমন

লিথুনিয়া টাকার মান অনেক বেশি। লিথুনিয়ার এক ইউরো সমান বাংলাদেশি মুদ্রার ১১৯ টাকা। লিথুনিয়ার ১০০ ইউরো সমান বাংলাদেশের ১১,৯৩৭ টাকা। তবে জেনে রাখা উচিত টাকার মান পরিবর্তনশীল। এখন ১ ইউরো সমান যত টাকা আছে পরবর্তী সময়ে এমনটা নাও থাকতে পারে। তাই আপনারা যদি নির্দিষ্ট সময়ের টাকার মান জানতে চান তবে আপনারা গুগল থেকে খুব সহজেই জেনে নিতে পারেন।

FQA

লিথুনিয়া কাজের ভিসার প্রাথমিক মেয়াদ কত দিন?

উত্তরঃ- এক বছর

লিথুলিয়া কাজের জন্য কোন দেশগুলোর ভিসা প্রয়োজন নেই?

উত্তরঃ- ইউরোপীয় ইউনিয়ন ভক্ত দেশগুলো

লিথুলিয়া কাজের ভিসার মেয়াদ বাড়ানো সম্ভব?

উত্তরঃ- হ্যাঁ, ভিসার মেয়াদ বাড়ানো সম্ভব।

লিথুনিয়া যেতে কত টাকা খরচ হয়?

উত্তরঃ- প্রায় সাত লক্ষ টাকার মতো।

লিথুনিয়ায় কাজের বেতন কত?

উত্তরঃ- প্রায় ৬০০ ইউরো।

Leave a Comment